বরগুনায় বেড়িবাঁধ ভেঙে শত শত পরিবার পানিবন্দী

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়ে বরগুনা সদরের ৫ নং আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের বেড়িবাঁধ ভেঙে শত শত পরিবার পানিবন্দী রয়েছে। এছাড়া বরগুনা সদরের মাইঠা, লবণগোলা ও বুড়িরচড় এলাকায়ও বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে।

বুধবার (২০ মে) দুপুরের দিকে বেড়িবাঁধগুলো ভেঙে যায়। সকাল থেকেই জেলায় থেমে থেমে বৃষ্টি ও ঝড়ো বাতাস বইছে।

 

জানা গেছে, বরগুনা সদরে স্বাভাবিক সময়ে জোয়ারের পানির উচ্চতা থাকে ২.৮৫ সেন্টিমিটার। বুধবার সকাল ১০টায় তা বেড়ে ৩.১০ সেন্টিমিটার হয়। এরপর থেকেই জোয়ারের পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেতে থাকে। এর প্রভাবে বরগুনা সদরের ৪টি স্থানে বেড়িবাঁধ ভেঙে গিয়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়। এছাড়া এর প্রভাবে বরগুনা সদরের ৫ নং আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের শত শত পরিবার পানিবন্দী রয়েছে।

এ বিষয়ে বরগুনার পানি উন্নয়ন বোর্ডের পানি পরিমাপক মো. মাহতাব হোসেন জানান, বরগুনার প্রধান ৩টি নদীতে বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ জানান, ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধগুলো সংস্কারের চেষ্টা চলছে। বরগুনা সদরের ৫ নং আয়লা পাতাকাটা ইউনিয়নের শত শত পরিবার পানিবন্দী রয়েছে। তাদের খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। তাদের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আজ রাতের দিকে আম্পান পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। সেজন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করা হচ্ছে।